আজ মঙ্গলবার | ২৭ শ্রাবণ, ১৪২৭ | ১১ আগস্ট, ২০২০ | ২০ জিলহজ, ১৪৪১ | রাত ৪:০৩
গোপালগঞ্জ, গোবড়া সবান রোড, ঢাকা, বাংলাদেশ
মঙ্গলবার || রাত ৪:০৩ || ১১ আগস্ট, ২০২০

উপরে উঠার পথটা শুধু সেবা নয়, সেখানে থাকতে হবে আত্মত্যাগ!

শেয়ার করুন

জীবনের গল্প

রবিবার, ২৬ জুলাই ২০২০ | ৫:১৭ অপরাহ্ণ

উপরে উঠার পথটা শুধু সেবা নয়, সেখানে থাকতে হবে আত্মত্যাগ!
ফাইল ছবি

একবার ঝড়ের রাতে এক বৃদ্ধ ও তার সহধর্মিনী হঠাৎ করে একটি হোটেলে এসে হাজির হল। হোটেল ম্যানেজারকে বললেন আমাদের থাকার জন্য একটি রুম লাগবে। এই ঝড় বৃষ্টির রাতে আমরা দুজন বৃদ্ধ মানুষ বড় বিপদে পড়ে গেছি। হোটেল ম্যানেজার বললেন।

দুঃখিত স্যার!

আজ আমাদের হোটেলে কোন রুম খালি নেই।
তাই বলে এই ঝড়ের রাতে আপনাদের মত দুজন 
সিনিয়র সিটিজেন কে বাইরে বের হতে দিতে পারি না।
যদি আপত্তি না থাকে আপনারা কি আমার রুমে আরাম করবেন।
হয়তো আমার রুম ততটা সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন নয়।
তবুও আশা করি, আপনাদের খুব একটা অসুবিধা হবেনা।

ম্যানেজারের অসুবিধার কথা ভেবে বৃদ্ধ দম্পতি শুরুতে না করলেও ম্যানেজার তাদের বিনয়ের সাথে আশ্বস্ত করে বলেন আমাকে নিয়ে আপনাদের চিন্তা করতে হবে না। আমার কোন অসুবিধা হবেনা আপনারা আমার রুমে থাকতে পারেন। ওই দম্পতি রাজি হলেন এবং ম্যানেজারের রুমে তারা সেই ঝড়ের রাত অতিবাহিত করলেন। হোটেল ম্যানেজার অতি আন্তরিকতার সাথে তাদের সকল বিষয় দেখভাল করায় তার আন্তরিকতায় মুগ্ধ বৃদ্ধ দম্পতি পরের দিন সকালে বিল পরিশোধ করার সময় ম্যানেজার বিল দিতে অস্বীকার করলেন!

বৃদ্ধ দম্পতি একপ্রকার জোর করে বিল ধরিয়ে দিয়ে ম্যানেজারকে বললেন তুমি এক অনন্য মানুষ। একই সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ উপকারী মানুষ পাওয়া বর্তমানে খুবই দুস্কর। তুমি হলে এমন একজন ম্যানেজার যে কিনা একদিন আমেরিকার সেরা হোটেলটি পরিচালনা করার দায়িত্ব গ্রহণ করবে। হয়তো একদিন আমি তোমার জন্য সেটি তৈরি করব। দুই বছর পরেও সেই ম্যানেজার আগের হোটেলে কাজ করছিল।

একদিন হোটেল ম্যানেজারের কাছে একটি চিঠি এলো ওই বৃদ্ধ দম্পতির কাছ থেকে। চিঠির প্রথম অংশে ঝড় বৃষ্টি রাতের কথা উল্লেখ্য ছিল। এবং চিঠির শেষের দিকে নিউইয়র্ক যাওয়ার একটি বিমান টিকিট সংযুক্ত করা ছিল।

এবং চিঠির মধ্যভাগে বৃদ্ধ দম্পতি হোটেল ম্যানেজারকে নিউইয়র্ক ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। হোটেল ম্যানেজার বৃদ্ধ দম্পতির আমন্ত্রণে চলে যান নিউইয়র্ক এ। এবং সেখানে বৃদ্ধ দম্পতির সাথে হোটেল ম্যানেজারের সাক্ষাৎ হয়।

তাদের দেখা হল নতুন নির্মাণ করা একটা চমৎকার ভবনের সামনে, বৃদ্ধ বললেন আমি তোমাকে বলেছিলাম না তুমি একদিন আমেরিকার সবচেয়ে বড় হোটেল পরিচালনা করবে এবং আমি তোমার জন্য সেটি তৈরি করব এই হল সেই হোটেল। আমি চাই তুমি এটা পরিচালনা কর।

এই চমৎকার ভবন হলো সত্যি কারের ওয়ার্ল্ড অফ এস্টোরিয়ার হোটেল। যে ম্যানেজার এখানকার প্রথম দায়িত্ব পালন করেন তিনি ছিলেন যশি ওল্ড (ছন্ধনাম)। তিনি কখনো কল্পনা করতে পারিনি সামান্য একটা উদারতার কাজ তাকে পৃথিবীর সবচেয়ে জাকজমকপূর্ণ হোটেলের ম্যানেজার বানিয়ে দেবে।

উপরোক্ত গল্প থেকে আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে এই যে, উপরে উঠার পথটা শুধু সেবা নয়, সেখানে থাকতে হবে আত্মত্যাগ! যখন আপনাকে সাহায্য করতে নিজের পথ কেউ ছেড়ে দেবে সেটাই পৃথিবীতে পরিবর্তন নিয়ে আসবে ।

 

Gopalganj, Gobra Saban Road, Dhaka Bangladesh
Acting Editor: Masum Akter Tanim, Newsroom And Management Mobile: +8801763-234376 || Communication With The Editorial Council: 01780-242169
Email: press24.info2020@gmail.com, press24.bangladesh2020@gmail.com, Copyright © 2019-2020, development by webnewsdesign.com