আজ শুক্রবার | ১০ আশ্বিন ১৪২৭ | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৭ সফর ১৪৪২ | সন্ধ্যা ৬:৫৭
গোপালগঞ্জ, গোবড়া সবান রোড, ঢাকা, বাংলাদেশ
শুক্রবার || সন্ধ্যা ৬:৫৭ || ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

দীপান্বিতা গাঙ্গুলীর একগুচ্ছ কবিতা

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ ২০২০ | ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ

দীপান্বিতা গাঙ্গুলীর একগুচ্ছ কবিতা
ছবি- প্রেস টুয়েন্টিফর ডট নিউজ

নৈঃশব্দ্যের
-দীপান্বিতা গাঙ্গুলী!


আমরা হেঁটে চলেছি শ্বেত গোলাপের বনে
না——?
সেখানে অজস্র মুক্ত আর রঙিন ঝিনুকের আলো
ফুটে আছে রূপোর রেকাবিতে—-
যেমনটি করে তাজমহলের
বুকে আছড়ে পড়ে নরম জ্যোৎস্নাসুখ ।

আজ নৈশভোজের আয়োজনে
তেমন কিছুই নেই
শুধু একটু অপেক্ষা —–
কথাকলির খেয়ায় বৈকালিক হাওয়া
নৈঃশব্দ্যের গভীরে!

শব্দ স্পষ্ট মেঘমল্লারের উদাসীনতা
তবুও,
দিনান্তের সুর
হয়ে ওঠে নীলকবিতা
সবুজ ভ্রমণের কথা ও কাহিনীতে।

 

 

বসন্ত বেলায়
-দীপান্বিতা গাঙ্গুলী


বসন্ত রাজের ফাগুন সাজে
শিমুল পলাশে লাগে নেশা- নিত্যদিনের ঘাটে
আবির সাজে এসো তুমি
পূর্ণ জ্যোৎস্না বাটে।

মন মহুয়ার স্বপ্ন দে দোল
হোলির রঙে মাতরে পাগল!
যত চাও নিয়ে যাও নিঃস্ব করি
আপনারে তাই হারায়েছি রাঙা পথে—
ওগো মোর,
আপন কাণ্ডারি।

সব মালা গাঁথা হলো নীপবনে পূজা শেষ ;
যেথা যাও ফিরে চাও
আর বুঝি নাহি পাও
এমন সমর্পণের বিদায় বেলায়
ফেলিয়া দিওনা ওগো শেষ স্মৃতিটুকু
এই বকুল খেলায় ।

 

মায়া
-দীপান্বিতা গাঙ্গুলী!!!!


মেঘের আড়ালে বসন্ত বাতাসে আবিরাশিক্ত
সদ্যফোটা পারিজাত রেখেছি
সমস্ত আপ্যায়ন জুড়ে,
হৃদয় ছূরির ফলায়
লাল গোলাপটি এখনো সতেজ।

প্রতিটি প্রণামে লেখা আছে বধির গমন ,
কেন তুমি গৃহে দ্বারে কেটে দিলে দন্ডি
সেই থেকেই আমি অশোক বনে–
নির্মম অরণ্যে বাস।
হৃদয় খন্ডনে মন্ত্রই কেবল শেখালে
পূর্ণ মাত্রায় দীর্ঘ এই গমনে।

দীর্ঘশ্বাসের অপলক অপেক্ষা—
চোরা স্রোতের ফাগুনে পুড়ছে
এই রিক্ত শয্যা,
তবুও ,পুরনো শীতের পোশাকটিতে
সুগন্ধি আতর – ‘দূর্লভ’।
নৈঃশব্দ্যের রেখা ভেদ করে এসেছে বসন্ত
ককিলের গানে ।

তোমার সার্টের বুক পকেটে জমে আছে পুরনো
দিনের রঙিন আবির,
যা দিয়ে লিখে গেছো ফাগুন জোনাকির কল্প গান।
সমস্ত দীর্ঘশ্বাসে ঘুমিয়ে আছে চেনা বা
অচেনা নাবিকের নীল জাহাজটি।

জানালার পর্দাটি সরিওনা —-
আমাকে দেখতে দাও শত মৃত্যু
আর সমুদ্রের উপর দিয়ে ভেসে যাওয়া
ঐ দূরের আকাশে টিমটিমে
লন্ঠনের আলো ।

মনেহয় সেই যাদুকর বুঝি ফেলে গেছে
তার শেষ ইচ্ছাটুকু গেরুয়া নদীর বুকে।

 

লাবন্য
-দীপান্বিতা গাঙ্গুলী


পিছনে চেয়ে দেখি ছোট্ট একটা বুনো গাছে একটি মাত্র ফুল ফুটেছে !
ওইতো,
যমুনার কালো জলে
নরম জ্যোৎস্না ভাসা রঙিন কবিতা আমার।

খোলা জানালার পাশে বসে যখনই গানের সুর বাঁধি তখনই তার বাঁশি বাজাবার তাড়া ।
এসে বলে ,
লাবন্য কতোদিন দিন তোমাকে কাজল
পরতে দেখিনি !

গুছিয়ে শাড়ি পরাতো ভুলেই গেছো !
আমি তার কানের কাছে ফিসফিস করে বলি
তুমি আমার আশা তুমি আমার স্বপ্ন,
আমি তোমার জীবন।

 

অব্যক্ত ভাষা
-দীপান্বিতা গাঙ্গুলী


শিশির ভেজা নরম জ্যোৎস্না যখন বোঝে
তার ভালোবাসা আগাগোড়া
মিথ্যেবাদী কপট—–

এই জল সিঞ্চনে,
লাম্পট্যের কলুষতায় ভরা।
সন্ধ্যাপূজা তখন তন্দ্রা হারায় অব্যক্ত বেদনায়।
ইন্দ্রপ্রস্থের ফাটলে শীতের কুয়াসা
নগ্ন করে অমৃত সময়কে।

বকধার্মিককে কতো আর ক্ষমা করা যায় ?
তাই নীল সুরার পাত্রে ঢেলে দিলাম হৃদয় খন্ডনের আস্ত একটা গল্প—-
থমকে গলো হরিণ সময়।

এবার কুমার তোমার কুঞ্জে হাজার রম্ভা ঊর্বসীর নৃত্যের আয়োজন করো ;
আমি শাক্তের মন্ত্র হারিয়েছি তাই সন্ধ্যা ফিরে যাক মাঘের গভীরে !
আজ গান ছেড়ে ঘুঙুর বেঁধে নিলাম
পরম যত্নে।
অযুত ময়ূরীর নৃত্যে ভরে উঠুক তোমার প্রমোদ উদ্যান।

Gopalganj, Gobra Saban Road, Dhaka Bangladesh
Acting Editor: Masum Akter Tanim, Newsroom And Management Mobile: +8801763-234376 || Communication With The Editorial Council: 01780-242169
Email: press24.info2020@gmail.com, press24.bangladesh2020@gmail.com, Copyright © 2019-2020, development by webnewsdesign.com